রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:১৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
প্রতিবন্ধীদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব : পরিকল্পনামন্ত্রী মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ড. মোমেনের বৈঠক যুদ্ধ বন্ধ করুন : জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে সৌদি আরব : রাষ্ট্রদূত আল দুহাইলান নলছিটিতে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা ভোলার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের আধুনিক ভবন নির্মানের ৩ বছরেও চালু হয়নি পটুয়াখালীতে ইউপি সচিবের দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর তদন্ত বেতাগীতে সরকারি গাছ কাটতে বাঁধা দেয়ায় এক যুবককে কুপিয়ে আহত ভোলায় দেশি হাঁসের কালো ডিম পাড়া নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি আপনজন ভাবনাঃ এস এম আক্তারুজ্জামান, ডিআইজি বরিশাল রেঞ্জ

ভোলায় জোয়ার ও বৃষ্টিতে ২০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি প্লাবিত

সাব্বির আলম বাবু, ভোলা ব্যুরো চিফঃ
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৪৫ বার পঠিত

ভোলায় ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’–এর প্রভাবে বৃষ্টি ও জোয়ারে জেলার প্রায় ২০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি প্লাবিত হয়েছে। এতে কৃষকেরা প্রায় ৫০০ কোটি টাকা ক্ষতির আশঙ্কা করছেন।
ভোলার আবহাওয়া কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, রোববার সন্ধ্যা ৬টা থেকে সোমবার বেলা ৩টা পর্যন্ত ৫০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।
ভোলা সদর উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সদর উপজেলার ১০০ হেক্টর আলু, এক হাজার হেক্টর খেসারি, ৪০০ হেক্টর শর্ষে, ১০০ হেক্টর গম, ৫০০ হেক্টর সবজি, ৫০০ হেক্টর আমন ধানসহ ৩ হাজার হেক্টর জমি প্লাবিত হয়েছে।
সরেজমিন দেখা যায়, ভোলার ভাঙা সড়কের গর্তে পানি জমে গেছে। মাটির সড়কে কাদায় একাকার। এই দুর্যোগের মধ্যেও মানুষ ছাতা নিয়ে কাজে বের হয়েছেন। কৃষকেরা খেতে জমে থাকা পানি পাম্প মেশিন ও বালতি-গামলা দিয়ে সেচে বের করছেন।
কয়েকজন কৃষক, কৃষিবিদদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, টানা বৃষ্টি ও উচ্চ জোয়ার সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের উত্তর রাজাপুর, দক্ষিণ রাজাপুর, কানিবগার চর, ভোলার চর, পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের গাজিপুর, কাচিয়া ইউনিয়নের বারাইপুর, রামদেবপুর, পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নের চরপাঙাশিয়া, ভেলুমিয়া ও ভেদুরিয়া ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল, দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের মধুপুর, টবগী, চরমুন্সি, মদনপুর, মেদুয়া ইউনিয়নের চর নেয়ামতপুর, ভবানীপুর, তজুমদ্দিন উপজেলার সোনাপুর, মলংচড়া, চরমোজাম্মেল, মনপুরা উপজেলার কলাতলি, চরডেম্পিয়া, ঢালচর, কুকরি-মুকরি, মুজিবনগর, চর কচুয়া-চর শাহাজালালসহ ৭৪টি চরাঞ্চল জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ভোলা খামারবাড়ির তথ্যমতে, ভোলায় প্রায় ২০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি প্লাবিত হয়েছে।
এলাকার কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভোলার চরের ৩২ একর, কানিবগা চরের ৩২০ একর, নবীয়ারচরের ৩৫ একর, মাঝের চরের আবদুল হান্নান জমাদারের ৩২০ শতাংশ, সবুজ চৌকিদারের ২৪০ শতাংশ, মাইনুদ্দিন মাঝির এক একর, দক্ষিণ রাজাপুরের নুরুমাঝির এক একর, জাকির সরদারের ২ একর, জাহাঙ্গীর সরদারের এক একর, বেচু মাঝির ৪৮ শতাংশ, জয়নাল আবেদীনের এক একর, শাহে আলম জমাদ্দারের এক একর, আবু তাহেরের ৮০ শতাংশ, মাইনুদ্দিন চৌকিদারের ৫০ শতাংশ জমির সবজিখেত ডুবে গেছে। ভোলার সদর উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, কাচিয়া ইউনিয়নের চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলের সবজিখেত প্লাবিত হয়েছে। এখানের জমিতে চিচিঙ্গা, করল্লা, ক্যাপসিকাম, শসা, বিট, গাজর, পেঁয়াজ, মরিচ, তরমুজসহ রবি মৌসুমের সবজি চারা, বীজতলায় বীজ বপন করা ছিল। ভোলা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রিয়াজউদ্দিন বলেন, বৃষ্টি ও উচ্চ জোয়ারে প্রায় তিন হাজার হেক্টর চরাঞ্চল-নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে টানা কয়েক দিন উচ্চ জোয়ার উঠলে বা জোয়ারে লবণ পানি থাকলে সঙ্গে বৃষ্টি হলে উল্লেখিত ফসলের ক্ষতি হবে। চরফ্যাশন উপজেলার ঢালচর ইউনিয়নের বাসিন্দা শাহে আলম ফরাজি বলেন, রোববার মধ্যরাত থেকে জোয়ারের উচ্চতা বেড়েছে। জমির ওপর ২-৩ হাত পানি উঠে খেত, পুকুর ও মাছের ঘের ডুবে গেছে।
মদনপুর ইউনিয়নের মধুপুরের কৃষক মো. শাহাবুদ্দিন ফরাজি জানান, তাঁর ২০ হেক্টর জমিতে লাগানো শসা, পেঁয়াজ, তরমুজ ও করলার খেত ভেসে গেছে। রোদ না উঠলে তাঁর অন্তত ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হবে।
মদনপুরের চরপদ্মা গ্রামের কৃষক নাছির শিকদার বলেন, তাঁর খেতের মিষ্টিআলু, মরিচ ও সবজি ডুবে গেছে।
মদনপুর টবগীর ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন হাওলাদার বলেন, তাঁর এলাকায় ২০০ একর জমি আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ৪৫ একর জমিতে চারা লাগানো হয়েছে। বাকি জমিতে চারা লাগানোর আগেই জোয়ার সব প্লাবিত করছে। মদনপুরের আরেক কৃষক, ইউপি সদস্য ফারুক দৌলত বলেন, কার্তিকের শেষ দিকে জমি শুকালে কৃষকেরা সবজি খেত তৈরি করেন। অনেকে খেত তৈরি করছেন, বীজ পোঁতার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। কিন্তু জোয়ার ওঠায় এসব খেত নষ্ট হয়ে গেছে। সার, ওষুধ, ছত্রাকনাশক, বীজ সব মিলিয়ে অন্তত একর প্রতি কৃষকের এক লাখ টাকার বেশি খরচ হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিপ্তরের ভোলা খামারবাড়ি সূত্র মতে, জোয়ার ও বৃষ্টিতে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর জমি প্লাবিত হয়েছে। কিন্তু ক্ষয়ক্ষতির কোনো তালিকা হয়নি।
ভোলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান বলেন, ভোলার মেঘনায় জোয়ারের উচ্চতা ছিল ৩ দশমিক ২০ মিটার, যা বিপৎসীমার ২১ সেন্টিমিটার নিচে। দিনের জোয়ারের উচ্চতা আরও বাড়বে।
ভোলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. হাসান ওয়ারিসুল কবীর বলেন, তাঁরা প্লাবিত খেত পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। এখনো ক্ষতি শুরু হয়নি। তবে কী পরিমাণ ক্ষতি হবে, তা আরও দুই-তিন দিন পরে বলা যাবে। তখন তালিকা করা হবে।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..