রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
প্রতিবন্ধীদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের দায়িত্ব : পরিকল্পনামন্ত্রী মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ড. মোমেনের বৈঠক যুদ্ধ বন্ধ করুন : জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে সৌদি আরব : রাষ্ট্রদূত আল দুহাইলান নলছিটিতে গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা ভোলার ২৫০ শয্যা হাসপাতালের আধুনিক ভবন নির্মানের ৩ বছরেও চালু হয়নি পটুয়াখালীতে ইউপি সচিবের দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলীর তদন্ত বেতাগীতে সরকারি গাছ কাটতে বাঁধা দেয়ায় এক যুবককে কুপিয়ে আহত ভোলায় দেশি হাঁসের কালো ডিম পাড়া নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি আপনজন ভাবনাঃ এস এম আক্তারুজ্জামান, ডিআইজি বরিশাল রেঞ্জ

মঈন ঝড়ে বিধ্বস্ত ক্যারিবিয়ানরা

ক্রীড়া ডেস্ক
  • আপলোডের সময় : মঙ্গলবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ৪৫ বার পঠিত

সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রোববার রাতের ম্যাচটায় জিতলেই সিরিজটা জেতা হয়ে যেত স্বাগতিকদের। তবে অলরাউন্ডিং পারফর্ম্যান্স দিয়ে উইন্ডিজের সিরিজ জয়ের পথে এবার বাধা হয়ে দাঁড়ালেন অধিনায়ক মঈন আলি। ব্যাট হাতে ঝোড়ো ফিফটির পর বল হাতে তুলে নিলেন ক্যারিবীয়দের গুরুত্বপূর্ণ দুটো উইকেট। ইংলিশদের ছুঁড়ে দেওয়া ১৯৪ রানের চ্যালেঞ্জের জবাব তাই দেওয়া হয়নি স্বাগতিকদের, ৩৪ রানে হেরেছে, সিরিজে চলে এসেছে ২-২ সমতা।

গত বুধবার কোয়াড্রিসেপের চোট নিয়ে অধিনায়ক অইন মরগ্যান সিরিজ থেকেই ছিটকে গিয়েছিলেন। তার পর থেকেই ইংল্যান্ড দলের অধিনায়ক মঈন। নেতার দায়িত্বটা তিনি পালন করলেন সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েই। চারে নেমে ব্যাট হাতে তুললেন ঝড়। হাঁকালেন সাতটা ছক্কা, যার চারটা আবার এসেছে টানা চার বলে। ইনিংসের ১৮তম ওভারে জেসন হোল্ডার পুরলেন মঈনের আগুনে। এর আগে ভিতটা গড়ে দিয়েছিলেন জেসন রয়। নিজের ৬৩’র পাশাপাশি রয়ের ৫২ রানের ইনিংসে ভর করে ইংলিশরা পায় ১৯৩ রানের পুঁজি।

তবে মঈনের আগের গল্পটা ইংলিশদের জন্য কিছুটা শঙ্কাই নিয়ে এসেছিল। সিরিজে তৃতীয় বারের মতো টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে টম ব্যান্টনকে শুরুতেই হারিয়ে বসে সফরকারীরা। এরপর র‍য় আর জেমস ভিন্সের জোরালো প্রতি আক্রমণে নবম ওভারেই ৮০ রান তুলে ফেলেছিল দলটি। ইংলিশদের রানের এই রাশ টেনে ধরেন পোলার্ড, স্লো মিডিয়াম কাটারে রানের গতি আটকে দেন, এরপর রয়কেও তুলে নেন তিনি। তাতেই ক্ষয়রোগের ভয় আঁকড়ে ধরে ইংল্যান্ডকে।

তবে এরপরই মঈন আলির সেই ইনিংস সব ভয় দূর করে দেয় সফরকারীদের। শুরুতে কিছুটা রয়ে সয়ে খেললেও শেষ দিকে তার ঝোড়ো ব্যাটিং ইংল্যান্ডকে দেয় বড় রানের দিশা। সঙ্গে লিয়াম লিভিংস্টোন, স্যাম বিলিংসরা ছোট ছোট দুটো ইনিংসে কেবল মঈনকে সঙ্গ দেওয়ার কাজটাই করে গেছেন। যার ফলে বাঁচা মরার লড়াইয়ে ইংলিশরা পায় দারুণ এক পুঁজি।

খটখটে শুকনো উইকেটে উইন্ডিজও বেশ ভালোই জবাব দিচ্ছিল। শেই হোপের বদলে ওপেন করতে নামা কাইল মেয়ার্স তার চল্লিশ রানের ইনিংসে ছিলেন যথেষ্ট স্বচ্ছন্দ। তাতেই বিনা উইকেটে ৫৬ রানে পৌঁছে যায় স্বাগতিকরা। তবে এরপরই অলরাউন্ডার মঈনের আঘাতে ফেরেন দুই ওপেনার। সঙ্গে আদিল রশিদ ও লিয়াম লিভিংস্টোনের বোলিংয়ে কাজটা কঠিনই হয়ে পড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। হোল্ডার আর কাইরন পোলার্ড লড়াইটা চালিয়ে গেলেও শেষমেশ তা উইন্ডিজের জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল না। ইংলিশরা ম্যাচটা জিতে নেয় ৩৪ রানে।

ইংলিশদের এই জয়ের ফলে সিরিজে চলে এসেছে ২-২ সমতা। সিরিজ নির্ধারণী লড়াইয়ের আগে অবশ্য দুই দল দম ফেলার ফুরসত পাচ্ছে না আদৌ। আজই সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে নেমে পড়তে হবে তাদের।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..