মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাঙ্গাবালী উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি আরিফ, সম্পাদক জামিল পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি প্রধান আসামি গ্রেফতার মুরাদনগরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্লাস্টিকের বেঞ্চ সরবরাহ দা-বঁটি-ছুরি-চাপাতি বানাতে ব্যস্ত কামার শিল্পী, টুংটাং শব্দে মুখরিত তাড়াইল মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মিরপুর সাইন্স কলেজের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে : ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় করার ব্যাপারে আশাবাদী মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মির্জাগঞ্জে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বকর, ভা: চেয়ারম্যান শাওন মহিলা ভা: চেয়ারম্যান হাসিনা নির্বাচিত

নগরীর ১৪ নং ওয়ার্ডে জোরপূর্বক জমি দখলের চেষ্টা: মারধরের অভিযোগ

বরিশাল প্রতিনিধি:
  • আপলোডের সময় : মঙ্গলবার, ৪ জুন, ২০২৪
  • ৫৭৫৯ বার পঠিত

বরিশাল প্রতিনিধি:

বরিশাল নগরীর ১৪ নং ওয়ার্ডে নূরিয়া স্কুলের পিছনে জনৈক অলিউল ইসলাম খানের জমি জবরদখলের চেষ্টায় বেড়া ভাংচুর ও জমি মালিককে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। জমি মালিক অলিউল ইসলাম নিজে বাদী হয়ে ১ জুন মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন বলে জানিয়েছেন। তিনি জানান, আমি ১৪ নং ওয়ার্ড দক্ষিণ আলেকান্দার নূরিয়া স্কুল সংলগ্ন এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা। আমার পিতা মৃত মতিন খান থেকে ২০০৬ সালে ওয়ারিশ সুত্রে পাওয়া চার শতক জমিতে ২০২০ সালে মাটি ভরাট করার পর টিন দিয়ে বেড়া দেওয়া হয়। জমিতে দুইঘর ভাড়াটিয়াও বসবাস করছেন। হঠাৎ করে গত ২০২৩ সালের ২৬ অক্টোবর এমপি কেসনং ১৬৯/২০২৩ এর মাধ্যমে আমরা জানতে পারি প্রতিবেশী প্রয়াত বারেক খানের ছেলেরা আলম খান পান্না (৫৫), মোঃ আরম খান (৪৮) ও আক্কাস খান (৪৫) ঐ জমি তাদের দাবী করে মামলা করেছে। চলতি বছর ৫ মার্চ বিজ্ঞ আদালত ঐ মামলা খারিজ করে আমার পক্ষে রায় দেন। রায় পেয়ে আমি পুনরায় জমির সামনের অংশে টিন ও কাঠ দিয়ে বেড়া নির্মাণ করি। কিন্তু ১ জুন দুপুরে মৃত বারেক খানের ছেলেরা আলম খান পান্না, আজম খান ও আক্কাস খান এসে আমাকে মারধর করে ও বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখিয়ে বেড়া ভাংচুর করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার ভিডিও ধারণ করা হয়েছে বলে জানান অলিউল ইসলাম। থানায় এসব জানিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে জানিয়ে অলিউল ইসলাম আরো বলেন, থানা থেকে একজন তদন্ত কর্মকর্তা ঘটনা স্থান পরিদর্শন করেছেন বলে জানান তিনি।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত আব্বাস ও আলম খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন, এই জমিতে আমাদেরও হক রয়েছে। তারা প্রতারণার মাধ্যমে আমাদের বঞ্চিত করছে। আমরা এখানে আড়াই শতক জমি পাবো বলে জানান আব্বাস খান ও আলম খান।

কোতোয়ালি মডেল থানার তদন্ত কর্মকর্তা সজল জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং উভয়পক্ষের সাথে কথা বলে নিজেদের মধ্যে আপোস মিমাংসা করে নিতে বলেছি। তিনি আরো বলেন, কাগজপত্র যার তিনিই জমির প্রকৃত মালিক হবেন বলে জানান।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..