শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০২:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
সড়ক ও জনপথ কর্মকর্তার ব্যাংকে শত কোটি টাকার লেনদেন হরিরামপুরে ৪ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা অর্জনের অভিযোগ ডিপিএইচই’র প্রাক্কলনিক আনোয়ারের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের উন্নয়নে চীনের সমর্থন অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিলেন শি জিনপিং বেনজীর-মতিউর-এর কুশপুতুল দাহ করায় হুমকি : উদ্বেগ প্রকাশ কোটা সমস্যার সমাধান করার দাবি জাতীয় শিক্ষাধারার হরিরামপুরে পদ্মা তীর রক্ষা বাঁধে ধস, জনমনে আতংক মুরাদনগর শ্রীকাইলে ক্যাপ্টেন নরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে হুরোয়া চ্যাম্পিয়ন তাড়াইলের কথিত পীর লুৎফর রহমানের বিরুদ্ধে ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ বর্ষার পানি বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে নৌকার চাহিদা

বাংলাদেশ চায়নার ডেড ট্র্যাপে পড়ে যাচ্ছে, এটা ঠিক নয় : মোমেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপলোডের সময় : রবিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
  • ৫৯০৪ বার পঠিত

‘বাংলাদেশ নাকি চায়নার লেজুড় হয়ে যাচ্ছে’- এমন অভিযোগকে ডাহা মিথ্যা কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ‘বিদেশিরা বলেন বাংলাদেশ চায়নার ডেড ট্র্যাপে পড়ে যাচ্ছে। অনেক জ্ঞানপাপী বলছেন, বাংলাদেশ নাকি শ্রীলঙ্কার মতো চীনা ঋণের ফাঁদে পড়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সতর্ক হও। তারা যেটা বলছে, সেটা ঠিক নয়। আমরা কখনও ডেড রিপেমেন্টে একদিনও দেরি করি নাই। এই বদনাম আমাদের নেই।’

শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে সেন্টার ফর নন রেসিডেন্ট বাংলাদেশি আয়োজিত ‘ব্র্যান্ডিং বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

ড. মোমেন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের মতে ঋণের ফাঁদে পড়তে হলে ৪০ শতাংশ ঋণ নিতে হয়। আমরা ঋণ নিয়েছি মাত্র ১৬ শতাংশ। বেশির ভাগ ঋণ নিই বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক থেকে। জাপান থেকেও ঋণ নিয়ে থাকি। চীনা ঋণ এসবের ধারে-কাছেও নেই।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমাদের ৮০ পারসেন্ট ইকুপমেন্ট নাকি চায়না থেকে কেনা। এটা একটা ডাহা মিথ্যা। আমরা তো সামরিক সরঞ্জাম যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, তুরস্ক থেকেও কিনছি। অনেক দেশ থেকেই কিনছি। ভারতও আমাদের কিছু দিতে চাচ্ছে। তারা কিছু লাইন অব ক্রেডিট দিয়েছে, অস্ত্র কেনার জন্য। আমাদের আর্মিরা বিষয়টা জানে, তারা কি কিনবে।’

তিস্তা ব্যারেজে চীন নাকি বিনিয়োগ করবে এমন কথাও বলা হচ্ছে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তিস্তা ব্যারেজে বিনিয়োগে তারা নাকি উৎসাহ দেখিয়েছে। তবে আমাদের বলেনি। আর এটা নিয়ে অনেকেই বলছেন, বাংলাদেশ নাকি চায়না হয়ে গেল! তারা বলে গেল বাংলাদেশ চায়না হয়েন গেল। এই ধরনের একটা ভয় তৈরি করা হচ্ছে। আমাদের অনেক জ্ঞানপাপী ইচ্ছে করে এই ভয় তৈরি করছে। এতে অনেকে এসব শুনে বলছে, সত্যি কিছু দুর্ঘটনা হচ্ছে।’

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..