শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৬:১৫ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
দৈনিক জনকন্ঠে ভূল সংবাদ পরিবেশন করায় ব্যবসায়ীর সংবাদ সম্মেলন সরকারের সময়োচিত উদ্যোগ বাস্তবায়নে পুলিশ জনবান্ধব বাহিনীতে পরিণত হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ ও নিরাপদে রাখতে পুলিশ সচেষ্ট থাকবে: রাষ্ট্রপতি রাফাহতে ইসরায়েলের হামলা হবে গাজার সাহায্যেও ‘কফিনে চূড়ান্ত পেরেক’ : জাতিসংঘ প্রধান অমর একুশে বইমেলার ২৬তম দিনে নতুন বই এসেছে ২৪৬টি বাংলাদেশ ফিলিস্তিনের নিপীড়িত জনগণের পাশে আছে : তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিএনপিকে ভুলের খেসারত দিতে হবে : ওবায়দুল কাদের দৃষ্টিনন্দন নগরী পটুয়াখালী এখন দর্শনার্থীদের আকর্ষণ লিবিয়া থেকে আরো ১৪৪ জন অনিয়মিত বাংলাদেশী দেশে ফিরেছেন স্বাস্থ্যসেবা বিকেন্দ্রীকরণ শুরু হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বেতাগীতে এক শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষনের শিকার

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি:
  • আপলোডের সময় : শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২
  • ৬০৬৬ বার পঠিত
অভিযুক্ত জহিরুল ইসলাম ( ১৮)

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি:

বরগুনার বেতাগীতে পানি আনতে গিয়ে এক শিশু শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে মাদ্রাসা পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (৪ আগষ্ট ) বেলা এগারটায় জোয়ার করুনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, উপজেলার মোকামিয়া ইউনিয়নের ৪১ নং উত্তর জোয়ার করুনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণিতে পড়ুয়া শিক্ষার্থী সকাল সাড়ে দশটার দিকে স্কুলের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বেড়িয়ে আসে। বোতলে করে বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবনের পাশে উত্তর ও পশ্চিম ঘেষে থাকা টিওবয়েলে পানি আনতে যায়। তখন একই এলাকার মোস্তফা হাওলাদারের ছেলে মাদ্রসা পড়ুয়া শিক্ষার্থী মো: জহিরুল ইসলাম ( ১৮) শিশু শিক্ষার্থীকে প্রথমে ডেকে নিয়ে সিঙ্গারা কিনতে টাকা নেওয়ার প্রস্তাব দেয়। এক পর্যায় হাত ধরে টানা-টানি করে।

এতে সে ভয়ে কান্না অবস্থায় ফের স্কুলে আসলে বেতাগী থানা পুলিশ খবর পেয়ে শিশু ও তার মাকে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়। থানায় দায়ের করা অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, জহিরুল ইসলাম শিশু শিক্ষার্থীর স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দেয় এবং শ্লীলতাহানি (ধর্ষন) করে।

স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে পরীক্ষার জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। এর আগে সকাল সারে দশটার দিকে জহিরুল বিদ্যালয়ের কাছেই মসজিদে ঝাড়ু দেওয়ার কাজে ব্যস্ত ছিল বলে স্থানীয়রা জানায়।

এ বিষয় স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো: মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘটনা শুনেই জহিরুলকে ধরতে শিক্ষকদের পাঠাই কিন্তু এর মধ্যেই সে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এ বিষয় তাৎক্ষণিক স্কুল ম্যানেজিং কমিটি, ভিকটিমের পরিবার ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে জানানো হয়েছে।

বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো: শাহ আলম বলেন, খবর পেয়েই আমাদের টীম ঘটনাস্থলে যায়। পৌঁছার আগেই অপরাধী পালিয়ে যায়। লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এখন প্রয়োজনীয় আইনানুগ  ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..