শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি প্রধান আসামি গ্রেফতার মুরাদনগরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্লাস্টিকের বেঞ্চ সরবরাহ দা-বঁটি-ছুরি-চাপাতি বানাতে ব্যস্ত কামার শিল্পী, টুংটাং শব্দে মুখরিত তাড়াইল মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মিরপুর সাইন্স কলেজের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে : ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় করার ব্যাপারে আশাবাদী মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মির্জাগঞ্জে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বকর, ভা: চেয়ারম্যান শাওন মহিলা ভা: চেয়ারম্যান হাসিনা নির্বাচিত পটুয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদেের সকল বিজয়ীরা নতুন মুখ

মিয়ানমারের ইতিবাচক সাড়ার কারণ সময় বলে দেবে : পররাষ্ট্রসচিব

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপলোডের সময় : রবিবার, ১৯ মার্চ, ২০২৩
  • ৫৮২২ বার পঠিত

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমার দিক থেকে ইতিবাচক সাড়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে এটা কী সাময়িক ব্যাপার বা এটার মধ্যে অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে; তা বোঝার জন্য বাংলাদেশকে চেষ্টা করতে হবে বলে মনে করেন পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন।

পাইলট প্রকল্পের মাধ্যমে কিছু রোহিঙ্গাকে রাখাইনে প্রত্যাবাসনের জন্য যাচাই-বাছাইয়ে মিয়ানমারের প্রতিনিধিদলের বাংলাদেশ সফর প্রসঙ্গে রোববার (১৯ মার্চ) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন পররাষ্ট্রসচিব।

মাসুদ বিন মোমেন বলেন, কালকে ওরা (রোহিঙ্গারা) রওনা করবে বা পরশু দিন ওদের ঠেলে পাঠিয়ে দেব, ব্যাপারটা সে রকম না। ১১ লাখ তো একদিনে বা এক রাতে, এক বছরে ফিরে যেতে পারবে না। প্রতিনিধিদল এসেছে, তারা কাজ করছে। এরপর আরও অনেক স্টেপ আছে।

পররাষ্ট্রসচিব বলেন, দেখতে হবে রোহিঙ্গারা যেখানে ফিরে যাবে সেখানে (রাখাইনে) সহায়ক পরিবেশ, তাদের স্বাধীনতা, তাদের চলাফেরার স্বাধীনতা, শিক্ষা বা স্বাস্থ্যসেবা থাকবে কি না। সেখানে আন্তর্জাতিক উপস্থিতি থাকবে কী না, হতে পারে আসিয়ান বা জাতিসংঘ। এ সমস্ত কম্বিনেশন যখন হবে তখন তারা আমাদের সঙ্গে বা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করবে। তারপরই এ লোকগুলো সেখানে যাওয়ার কথা আসবে।

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন নিয়ে সরকার আশাবাদী কী না? এমন প্রশ্নের জবাবে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে মিয়ানমারের দিক থেকে একটা ইতিবাচক আচরণ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এটা আগে কিন্তু করে নাই। ওদের দিক থেকে পজিটিভ একটা বিষয় লক্ষ্য করছি, এতদিন তো করে নাই। তবে এটা কী সাময়িক ব্যাপার বা এটার মধ্যে অন্য কোনো উদ্দেশ্য আছে কী না… থাকলেও থাকতে পারে। সেটা আমাদের বোঝার চেষ্টা করতে হবে।

পররাষ্ট্রসচিব বলেন, আমরা যদি কনভিন্স না হই তাহলে জিনিসটা টেকসই হবে না বা এটা শুরু করলে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে না। এটা না হওয়া পর্যন্ত আমরা ওদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাবো ইন গুড ফেইথ। গত পাঁচ-ছয় মাসে তাদের দিক থেকে নড়াচড়া বা মুভমেন্ট দেখা যাচ্ছে। এখন সময়ই বলে দেবে আগামী ছয় মাসে তাদের এসব পদক্ষেপ টেকসই হবে কী না।

পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে বর্ষা মৌসুম শেষে আগামী শীতের শুরুর দিকে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন শুরুর ইঙ্গিত দেন পররাষ্ট্রসচিব।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..