মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৬:২২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
রাঙ্গাবালী উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি আরিফ, সম্পাদক জামিল পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি প্রধান আসামি গ্রেফতার মুরাদনগরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্লাস্টিকের বেঞ্চ সরবরাহ দা-বঁটি-ছুরি-চাপাতি বানাতে ব্যস্ত কামার শিল্পী, টুংটাং শব্দে মুখরিত তাড়াইল মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মিরপুর সাইন্স কলেজের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে : ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় করার ব্যাপারে আশাবাদী মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মির্জাগঞ্জে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বকর, ভা: চেয়ারম্যান শাওন মহিলা ভা: চেয়ারম্যান হাসিনা নির্বাচিত

ভোলায় রেকর্ড পরিমাণ সূর্যমুখী চাষ, ফলনে খুশি কৃষক

সাব্বির আলম বাবু (নিজস্ব প্রতিবেদক):
  • আপলোডের সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৫৮১৯ বার পঠিত

এবছর ভোলায় রেকর্ড পরিমাণ চাষ হয়েছে সূর্যমুখী। ক্ষেতে রোগ ও পোকামাকড়ের আক্রমণ তেমন না থাকায় ফলনও হয়েছে ব্যাপক। বাজারদর বেশি হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকদের মুখে। সূর্যমুখী বেশি লাভজনক ফসল হওয়ায় দিন দিনই বাড়ছে চাষির সংখ্যা।

সরেজমিনে জানা যায়, এবছর ভোলার ৭ উপজেলা সূর্যমুখীর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৫০ হেক্টর। আবাদ হয়েছে ৯০৭ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩৫৭ হেক্টর বেশি। কৃষকরা ক্ষেতে শেষ সময়ের পরিচর্যায় ব্যস্ত। কয়েক দিনের মধ্যে ক্ষেত থেকে কাটতে শুরু করবেন। এবছর ৭ উপজেলায়ই সূর্যমুখী চাষ হয়েছে। মাটি ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় ফলনও ভালো হয়েছে। ভোলা সদর উপজেলার ভেদুরিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম চর কালি গ্রামের কৃষক মো. আনছার আলী ও আরশাদ আলী জানান, তারা এবছর ৫০ শতাংশ জমিতে সূর্যমুখী চাষ করেছেন। প্রায় ১০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবছর ব্যাপক ফলন হয়েছে। তাদের আশা, প্রায় ৩০-৪০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবেন।

তারা জানান, এবছর ক্ষেতে রোগ ও পোকামাকড়ের আক্রমণ নেই। তাই ক্ষেতে তেমন সার ও কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়নি। যে কারণে উৎপাদন খরচও কম হয়েছে। রাজাপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কৃষক শাহ জামাল ও আবুল কাশেম জানান, তারা গত বছর থেকে সূর্যমুখী চাষ করে আসছেন। গত বছর তাদের সূর্যমুখী চাষ করে ব্যাপক লাভ হয়েছে। এবছর আরও বেশি জমিতে চাষ করেছেন। ক্ষেতে ব্যাপক ফলন হওয়ায় তারা খুশি। তারা জানান, সূর্যমুখী যখন ক্ষেত থেকে কাটেন; তখনই স্থানীয় ও বিভিন্ন এলাকার মানুষ ক্ষেত থেকে কিনে নিয়ে যান। যে কারণে তাদের কষ্ট করে বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে হয় না। ক্ষেতে বসেই তারা ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা মণপ্রতি বিক্রি করতে পারবেন।

ভেদুরিয়া ইউনিয়নের চর কালি গ্রামের কৃষক মো. নূরুন্নবী জানান, তাদের এলাকার কৃষকরা সূর্যমুখী চাষ করে অনেক লাভবান হচ্ছেন। এটি জানতে পেরে তিনি সূর্যমুখী ক্ষেতে এসে কৃষকদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়েছেন। আগামী বছর এক থেকে দেড় একর জমিতে তিনি সূর্যমুখী চাষ করবেন।
ভোলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. হাসান ওয়ারিসূল কবীর জানান, সূর্যমুখী একটি লাভজনক ফসল। তারা কৃষককে নানাভাবে উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছেন। এতে ভোলায় এবছর বেকর্ড পরিমাণ চাষ হয়েছে। এছাড়াও এবছরের সফলতা দেখে আগামী বছর আরও চাষ বাড়বে।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..