মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
নাগেশ্বরীতে প্রাণী সম্পদ অফিসে টেকনিসিয়ান নিয়োগে অনিয়ম এডিসের লার্ভা পেলে জেল ও জরিমানা করা হবে: ডিএনসিসি মেয়র জলবায়ু অভিযোজনে সফলতার জন্য বিশ্বের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস জরুরি : পরিবেশমন্ত্রী কারিগরি বোর্ডের চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে ডিবি আওয়ামী লীগের শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশ স্থগিত প্রধানমন্ত্রীর থাইল্যান্ড সফরকালে ৫টি দলিল স্বাক্ষর ও বহুমুখী সহযোগিতার সম্ভাবনা : পররাষ্ট্রমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ জলবায়ু উন্নয়ন অংশীদারিত্ব গঠন: প্রধানমন্ত্রী যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী কাতারের আমীরকে লাল গালিচা অভ্যর্থনা দেয়া হয় ঢাকা বিমানবন্দরে তাড়াইলে তীব্র তাপদাহে অতিষ্ঠ জনজীবন- হাসপাতালে বাড়ছে রোগী

ইলিশ শিকারে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা ॥ সঠিক সময়ে প্রণোদনা পাওয়ার দাবি ভোলার জেলেদের

সাব্বির আলম বাবু (ভোলা ব্যুরো চিফ):
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ১২ অক্টোবর, ২০২২
  • ৬০০৪ বার পঠিত

ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিবছরের মতো এবারও ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিনের জন্য ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, মজুদ এবং ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় করনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার।

ইলিশের প্রধান এই প্রজনন মৌসুমে জেলেরা ইলিশ শিকারসহ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে তাদেরকে কারাদ- বা অর্থদ- অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে। যেসব জেলেরা এসময় ইলিশ শিকার থেকে বিরত থাকবে তাদের মাঝে প্রণোদনা হিসেবে বিশেষ ভিজিএফ চাল বিতরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। মা ইলিশ যাতে অবাধে ডিম ছাড়তে পারে সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য ভোলার জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং মৎস্য বিভাগ বিশেষ অভিযান পরিচালনা করবে।

ভোলার জেলেরা জানিয়েছে, তারা সরকারের এই নিষেধাজ্ঞা মেনে ইলিশ শিকার থেকে বিরত থাকবে। ভোলার ৭ উপজেলার ১ লাখ ৫৮ হাজার ৩ শত ৪৪ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকৃত জেলেদের মাঝে সুষ্ঠুভাবে চাল বিতরণ এবং এনজিওর কিস্তি বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেছেন ভোলার জেলেরা। ভোলার তুলাতুলি মৎস্য ঘাটের জেলে মোঃ মমিন জানান, সরকার যে সমস্ত অভিযান দেয় প্রত্যেকবারই সরকারের অভিযান তারা পালন করেন। তবে সরকারের পক্ষ থেকে যে সমস্ত সাহায্য সহযোগিতা করা হয়, কোন অভিযানের সময় তারা ঠিকমতো পায় না। এবছর যাতে সঠিক সময়ে সঠিকভাবে সরকারের প্রণোদনা পায় সেই দাবিও করেন। জেলে মনজুর রহমান বলেন, এনজিওর কিস্তি বন্ধ না করলে অভিযান পালন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। তাই অভিযানের এই সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে ঋণের কিস্তি বন্ধ রাখা জরুরি।

ভোলার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোল্লা এমদাদুল্ল্যাহ জানিয়েছেন, ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়ন করা গেলে ইলিশ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে। তিনি বলেন, জেলেদেরকে নিষেধাজ্ঞার সময় ইলিশ শিকার থেকে বিরত রাখতে ভোলার ১ লাখ ৩২ হাজার জেলেকে প্রণোদনা হিসাবে জনপ্রতি ২৫ কেজি করে চাল দেয়া হবে। এরপরও যে সমস্ত জেলে আইন অমান্য করে মাছ শিকার করবে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মৎস্য আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..