সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৭:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
তাড়াইলে ৪ গরু চোর গ্রেফতার, জব্দ গাড়িসহ ৬টি গরু পটুয়াখালীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী রেজাউল করিম সোয়েবের ইশতেহার ঘোষণা  রেড ক্রিসেন্টের প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা সাজানো: কর্মকর্তাদের মাঝে চাপা ক্ষোভ ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবিলায় প্রস্তুতি, ফায়ার সার্ভিস, ছুটি বাতিল : মনিরটিং সেল গঠন এমপি আনার খুনের তদন্তে ভারত যাবে গোয়েন্দা পুলিশ কোন দলের নেতাকর্মীকে জেলে পাঠানোর এজেন্ডা আমাদের নেই: ওবায়দুল কাদের সাকিব নট আউট ‘৭০০’ সরকার সকল ধর্মের বিশ্বাসীদের নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে চায় : প্রধানমন্ত্রী ঢাকাবাসীকে সুন্দর জীবন উপহার দিতে কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড় রেমালের মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে সরকার : মহিববুর রহমান

রাঙ্গাবালীতে এসএসসি পরিক্ষার্থীকে মারধোর এর অভিযোগ

সাইমন ইসলাম সান্টু, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ১৭ মে, ২০২৩
  • ৫৮২০ বার পঠিত

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় দাখিল পরীক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে পরিক্ষার্থী কে চর থাপ্পড় ও লাথি মেরে সরকে ফেলে মারধর করছেন আব্বাচ উদ্দিন নামে এক এ এস আই। মঙ্গলবার দুপুরে হালিমা খাতুন মহিলা কলেজে পরীক্ষা শেষে হালিমা খাতুন মহিলা কলেজের পরিক্ষা কেন্দ্র থেকে বের হওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে। মারধোর করা আব্বাস উদ্দিন রাঙ্গাবালী থানায় কর্মরত আছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,পরিক্ষা শেষে কয়েকজন পরিক্ষার্থী তাদের সহপাঠীদের অপেক্ষায় কেন্দ্রের ভিতরে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এসময় এএসআই আব্বাস উদ্দিন গিয়ে তাদের কে গলা ধাক্কা দিয়ে বের করে দেন।পরে জুনাইদ নামে এক শিক্ষার্থী ধাক্কার কারন জানতে চাইলে,তাকে চর থাপ্পড় দিয়ে সরকে ফেলে মারধোর করতে করেন এএসআই আব্বাস উদ্দিন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী জুনাইদ জানান আগামীকাল আমাদের প্রাক্টিকাল পরিক্ষা রয়েছে তাই স্যার আমাদের দাড়াতে বলেছেন। তাই আমারা কয়েকজন কেন্দ্রের মধ্যে দাড়িয়ে ছিলাম। তখন এএসআই আব্বাস আমাদের বাহিরে গিয়ে দাড়াতে বলেন। তখন আমরা বলেছিলাম সব বন্ধুরা বের হউক আমরা এক সাথে স্যারের কাছে যাবো তাই দাড়িয়ে আছি।তারপর আব্বাস দারোগা আমাদের ধাক্কা দিয়ে বের করে দেন। পরে আমি বলি যে কি কারনে ধাক্কা দিলেন জানতে পারি।এরপরই সে আমার কলার ধরে চর থাপ্পড় মারতে মারতে মাটিতে ফেলে লাতি মারতে থাকে।

অপর এক পরিক্ষার্থী মোঃ ইসান বলেন আগামীকাল আমাদের প্রাকটিকাল পরিক্ষা তাই স্যারের সাথে কথা বলার জন্য দাড়িয়ে ছিলাম, এএসআই আব্বাস উদ্দিন আমাদের বন্ধুদের কে হুদাই মারলো, আমরা এর সুস্ঠ তদন্তের মাধ্যমে বিচার চাই।

রাঙ্গাবালী হালিমা খাতুন মহিলা কলেজের হল সচিব মাওলানা মাহমুদুর রহমান জানান পরিক্ষা শেষে আমি বাড়ি চলে আসছি পরে শুনি গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটেছে। এভাবে একজন পরিক্ষার্থী কে পুলিশ পেটাতে পারে না। আমরা ওসি সাহেবের সাথে কথা বলে ব্যাবস্থা নিবো।

অভিযুক্ত, আব্বাস উদ্দিন বলেন,আমি তাকে মারি নাই সরতে বলছি সরে নাই তাই ধাক্কা দিছি সে পরে গেছে। তাকে লাথি থাপ্পড় মারি নাই।

রাঙ্গাবালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোঃ নুরুল ইসলাম মজুমদার জানিয়েছেন, লাথি না ধাক্কা ই বা সে দিতে যাবে কেন। আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখবো।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..