মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০২:২৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাঙ্গাবালী উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি আরিফ, সম্পাদক জামিল পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি প্রধান আসামি গ্রেফতার মুরাদনগরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্লাস্টিকের বেঞ্চ সরবরাহ দা-বঁটি-ছুরি-চাপাতি বানাতে ব্যস্ত কামার শিল্পী, টুংটাং শব্দে মুখরিত তাড়াইল মির্জাগঞ্জে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) উদ্যোগে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ মিরপুর সাইন্স কলেজের ৩য় ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনে সকল রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে : ওবায়দুল কাদের শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় করার ব্যাপারে আশাবাদী মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মির্জাগঞ্জে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু বকর, ভা: চেয়ারম্যান শাওন মহিলা ভা: চেয়ারম্যান হাসিনা নির্বাচিত

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: হরিরামপুরে জনজীবন বিপর্যস্ত ও কৃষিতে ব্যপক ক্ষতির শঙ্কা

দিপংকর মন্ডল, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি:
  • আপলোডের সময় : বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪
  • ৫৭৬৭ বার পঠিত

দিপংকর মন্ডল, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি :

গতকাল রাতেই উপকূলীয় এলাকায় ঘূর্ণিঝড় রেমাল আছড়ে পড়েছে। যার প্রভাব পড়েছে মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর উপজেলাতেও। সোমবার সকাল থেকেই মাঝারি ও ভারী বৃষ্টিপাত এবং তার সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বইছে।

ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টির কারণে মানুষের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বের হচ্ছে না, রাস্তাঘাটে গাড়ি চলাচল সীমিত, দোকানপাটে নেই বেচা বিক্রি, কৃষক ও দিনমজুর জমিতে কাজ করতে পারছে না, এছাড়াও সকাল থেকেই বিভিন্ন এলাকায় বিদুৎ সংযোগ না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ মানুষেরা।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় রেমালের আতঙ্কে চিন্তায় পড়ে গেছেন হরিরামপুরের কৃষকরা। হরিরামপুর সহ জেলা জুড়েই বিঘের পর বিঘেতে রয়েছে ইরি ধান। সাথে রয়েছে ভুট্টা, মরিচ, তিল ও পাট সহ বিভিন্ন ফসল। ঝড়ের কারণে সম্পূর্ণ ধান নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায় ঝড়ের কারনে মরিচ, ভুট্টা, তিল সহ প্রায় সকল ফসলই মাটিতে নুইয়ে পড়েছে। জমিতে জমিতে রয়েছে পাকা ধান৷ ঝড়ের কারনে সম্পূর্ণ ধান নষ্ট হয়ে যেতে পারে। হাতে সময় নেই। কী করে ধান কেটে তা ঘরে তুলবেন তা নিয়ে চিন্তার ভাঁজ কৃষকদের মনে।

উপজেলার ঝিটকা এলাকার বাসিন্দা আব্দুল আলিম বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমাল এর কারণে বাইরে বের হতে পারিনি। সারাদিন বাড়িতে থাকতে হয়েছে। এছাড়া কাল রাত থেকে বিদ্যুৎ না থাকার কারনে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

গোপীনাথপুর ইউনিয়নের উজান পড়া গ্রামের দিনমজুর নজরুল মিয়া জানান বৃষ্টি কারনে আজকে কাজে যেতে পারিনি। এ বৃষ্টি যদি আরো কয়দিন থাকে তাহলে আমরা কাজ না করতে পারলে চলবো কি ভাবে।

গালা ইউনিয়নের বিজয়নগর গ্রামের কৃষক মনির হোসেন বলেন, ঝড় ও বৃষ্টির কারনে আমার ২ বিঘা ভুট্টা এ ১ বিঘা মচির ক্ষেত নষ্ট হয়ে গেছে। সবগুলো গাছ বাতাসের কারনে মাটিতে শুয়ে পড়েছে। আমার অনেক ক্ষতি হয়ে গেলো।

একই গ্রামের কৃষক সতীশ বালো বলেন, আমার ৫ বিঘা জমিতে পাকা ধান রয়েছে। আজকালের মধ্যে মেশিন দিয়ে কাটবো ঠিক করেছিলাম। এরই মধ্যে ঝড়ের কারনে আমার সব ধান মাটিতে পড়ে গেছে। এখন বেশি টাকা খরচ করে মজুর দিয়ে ধান কাটাতে হবে। মাটিতে পরার কারণে অনেক ধান নষ্ট হয়ে যাবে।

হরিরামপুর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ তৌহিদুজ্জামান খান বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে মাঠে দন্ডায়মান ধান, মরিচ, পাট, ভুট্টা, তিলসহ সকল ফসলের ফলনে বিরুপ প্রভাব পরার আশংকা রয়েছে। প্রচন্ড বাতাসের কারণে ফসলের ক্ষতি হতে পারে। এই অবস্থায় উপজেলা কৃষি অফিস থেকে মাঠকর্মীদের নিজ নিজ ব্লকে উপস্থিত থেকে মাঠ ফসলের মনিটরিংসহ সার্বক্ষনিক কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করার নিদের্শনা প্রদান করা হয়েছে।

দয়া করে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর..